মেস্তা বা মেলাসমা কি?

মেলাসমা দিন দিন ব্যাপকহারে দেখা যাচ্ছে আর এই মেলাসমা নিয়ে মানুষ পড়ছে ভিশন বিরম্বনায়। রংবেরঙের কসমেটিকসের চমকদার বিজ্ঞাপনে প্রতারণার আরেক ধাপ এগিয়ে আছে। কিন্তু তেমন কোনো ফলই হচ্ছে না সবার মুখে একই কথা যতদিন প্রসাধনী ব্যবহার করি কিছুটা হালকা হয় । ক্রিম ব্যবহার বন্ধ করলে আবার ফিরে আসে।

আসুন জেনে নেই মেস্তা বা মেলাসমা কি? (What is Mesta or Melasma?)

ইংরেজি তে বলা হয় ম্যালাসমা আর বাংলায় মেসতা। এটি সাধারণত গালে নাকে ও কপালে দেখা দেয়। মাঝে মাঝে পুরুষদেরও দেখা যায় তবে পুরুষদের তুলনায় নারীরা এতে বেশি আক্রান্ত হয়।

মেলাসমা (Mesta/Melasma) কেন হয়?

মেলানোসাইট নামক এক ধরনের কোষ ত্বকের নিচে কালো দাগ তৈরি করে। এই মেলানোসাইট হরমোন শরীরের যে জায়গায় ঘনত্ব তৈরি করে ওই জায়গাটা আস্তে আস্তে কালো হয়ে যায় যাতে পরবর্তীতে মুখের উপরে মেছতার আকারে প্রকাশ পায়। যা দেখতে বেশ দৃষ্টিকটু মনে হয়।

মেলাসমা কাদের হয়?

একটা বয়সে এ সমস্যা বেশি দেখা যায়। আগেই বলেছিলাম যে পুরুষ ও নারী উভয়েরই এ রোগ দেখা যায় তবে নারীদের মাঝে বেশি দেখা যায়। বিশেষ করে ৩০ এরপরে বয়সে, প্রেগনেন্সির সময় মনোপোজ ও থাইরয়েড হরমোনের ইমব্যালেনস এর কারণে এমন হয়।

মেলাসমা উপসর্গ কি?

মেলাসমা এমন কোন উপসর্গ হয় না যেমন ধরুন জ্বালাপোড়া চুলকানি ইত্যাদি কোন উপসর্গ হয় না শুধুমাত্র চামড়ার উপরে কালো রেখা বা কালো ছোপ ছোপ দাগ পড়ে যায় কবে দেখতে বিশ্রী লাগে।

মেলাসমা কি ভাল হয়?

আলহামদুলিল্লাহ সম্পূর্ণ ভালো হয়। নির্ধারিত ফুড হ্যাবিট, লাইফস্টাইল ও লক্ষণ অনুযায়ী হোমিওপ্যাথি মেডিসিন ব্যবহারের ফলে মেলাসমা চিরতরে ভালো হয়ে যায় ইনশাআল্লাহ।

(চিকিৎসা নিতে হলে অথবা বিস্তারিত জানতে হলে ইনবক্স করুন অথবা ফোন করুন এই নম্বরে 01998504923)

প্রয়োজনীয় লেখাসমূহঃ

Leave a Comment

three × 2 =